রঙের ওপর নির্ভর না করে শুধু মনের নান্দনিকতাকে বিভিন্ন পরিকল্পনা বা নকশার মাধ্যমে উপস্থাপন করার নামই গ্রাফিক্স ডিজাইন। খুব সাধারণ সংজ্ঞায় বলতে চাইলে, কোনো আঁকা ছবি, ইমেজ কিংবা অক্ষর শিল্পকেই গ্রাফিক্স ডিজাইন বলে।

কোনো সৃজনশীল কাজের প্রাথমিক যে খসড়া রচিত হয়, তার পুরোটাই গ্রাফিক্স ডিজাইনের প্রধান ক্ষেত্র। কোনো কিছুকে শিল্পসম্মতভাবে পরিবেশন করতে গ্রাফিক্সের বিকল্প নেই। গ্রাফিক্সের কাজ করতে গেলে ডিজাইনটিকে অবশ্যই ছাপা উপযোগী করে তৈরি করতে হবে।

আপনাকে মনে রাখতে হবে, গ্রাফিক ডিজাইনের সফল পরিসমাপ্তিই হচ্ছে কাগজ কিংবা ভার্চুয়াল পাতায় এটির প্রকাশ পাওয়া। এজন্য কাগজ কিংবা ওয়েবসাইটের বিভিন্ন মাপজোখ সম্পর্কে ধারণা থাকতে হবে। তবে প্রথমেই ভয় পাওয়ার কিছু নেই, কাজে নেমে হাতে-কলমে করতে করতে ব্যাপারগুলো এমনিতেই আপনার আয়ত্তে এসে যাবে। আর কাজ শিখলে দেশে-বিদেশে অসংখ্য ক্ষেত্রে কাজ করা যাবে।

এছাড়া আউটসোর্সিং পেশায় সবচেয়ে বেশি চাহিদা রয়েছে এ গ্রাফিক্স ডিজাইন পেশায়। কাজের ক্ষেত্র: গ্রাফিক ডিজাইন ব্যাপারটির সঙ্গে বাণিজ্যের একটা ওতপ্রোত সম্পর্ক রয়েছে। কাজটা শেখা মাত্রই আপনার সামনে উপার্জনের নানা পথ উন্মোচিত হয়ে পড়বে।

বর্তমান যুগের কোনো জিনিসটির সঙ্গে গ্রাফিক্স ডিজাইনের কোনো যোগসূত্র নেই খুঁজে পাওয়া মুশকিল। আমাদের পরিধেয় কাপড়-চোপড় তৈরি থেকে শুরু করে বাড়ি-গাড়ি, পণ্যের মোড়ক, টাইলসের কারুকার্য, মডার্ন পেইন্টিং, বুক কভার, স্টিকার, বিজ্ঞাপন, ক্যালেন্ডার, সফটওয়্যার ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, এনিমেশন, টেক্সটাইল ডিজাইন ইত্যাদি সব কাজেই গ্রাফিক ডিজাইন অনস্বীকার্য। চাইলেই যে কোনো অফিস, ব্যাংক-বীমা, প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, বিজ্ঞাপনী সংস্থা ও বিভিন্ন কর্পোরেট হাউসগুলোতে চাকরি পেয়ে যেতে পারেন। আবার কারও অধীনে কাজ না করতে চাইলে ফ্রিল্যান্সিংও করতে পারবেন আপনি।

ইন্টারনেটের মাধ্যমে আপনার করা যে কোনো ডিজাইন, হতে পারে সেটা একটা ভিজিটিং কার্ড, বিক্রি হতে পারে হাজার ডলারে। আর টাকার বিনিময়ে কারও কাজ করে দেয়ার সুযোগ তো থাকছেই। কোথায় শিখবেন: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদের গ্রাফিক ডিজাইন বিভাগ আপনার প্রথম পছন্দ হতে পারে।

এছাড়া সরকারি গ্রাফিক আর্টস ইন্সটিটিউট অনেক আগে থেকেই সুনামের সঙ্গে গ্রাফিক্সের ওপর শিক্ষা দিয়ে আসছে। খুব কম বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়েই গ্রাফিক্সের ওপর পড়ালেখার সুযোগ রয়েছে। এর মধ্যে শান্তা-মরিয়ম ইউনিভার্সিটি এবং ইউডাতে (ইউনিভার্সিটি অব ডেভেলপমেন্ট অলটারনেটিভ) এ ব্যাপারে পড়ালেখা করা যাবে।

এছাড়া প্রতিষ্ঠিত বেসরকারি প্রচুর প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা গ্রাফিক্স ডিজাইনের অ-আ থেকে শুরু করে উচ্চশিক্ষাও প্রদান করে থাকে। বাংলাসফট কম্পিউটার নামের একটি প্রতিষ্ঠানও বিশেষ ছাড়ে এ প্রশিক্ষণ দিচ্ছে। -আইটি ডেস্ক

Content Protection by DMCA.com